অবাধে কাটা হচ্ছে ফসলী জমির টপ সয়েল
অবাধে কাটা হচ্ছে ফসলী জমির টপ সয়েল
সুমন ভৌমিক::নোয়াখালী জেলা সদরে অবাধে উত্তোলন হচ্ছে বালু, কাটা হচ্ছে ফসলী জমির টপ সয়েল ও সরকারি খালের বেড়ি বাঁধের মাটি। এতে একদিকে জমির উর্বরতা হ্রাস পেয়ে উৎপাদন শাক্তি হারাচ্ছে জমি এবং পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। এসব মাটি ও বালু জেলা শহরে নতুন বসত বাড়ি গড়তে ব্যবহার করা হচ্ছে। সদর উপজেলার অশ্বদিয়া ইউনিয়নের অশ্বদিয়া গ্রাম, কালা চাঁদপুর, গৌপিভল্লবপুর, চৌধুরীর হাট, মুকিমপুরসহ বেশ কয়েকটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটছে অহরহ। কৃষিবিদরা বলছে জমির ‘টপ সয়েল’ বা উপরি ভাগের মাটি কেটে ফেলার ফলে ৪-৫ বছরের জন্য অনাবাদি হয়ে যাচ্ছে ওই জমি। একই কথা বলছে কৃষি বিভাগও। কৃষিবিদ ও সংশ্লিষ্টদের দাবি সরকারি Details
সুবর্ণচরে সয়াবিন আবাদ কমেছ, তবুও ব্যস্ত কৃষক
সুবর্ণচরে সয়াবিন আবাদ কমেছ, তবুও ব্যস্ত কৃষক
সুমন ভৌমিক, ০৫ মার্চ ২০১৪::লোকসানে পড়ে আগ্রহে ভাটা পড়েছে সুবর্ণচরের সয়াবিন চাষীদের। গত মওসুমে সুবর্ণচর উপজেলায় সয়াবিনের বাম্পার ফলন হলেও অতি বৃষ্টির কারণে ফসল ঘরে তোলার আগেই জমিতে পচে ফসল নষ্ট হওয়ায় লোকসান গুনতে হয়েছিলো কৃষকদের। যার ফলে এবার সয়াবিনের আবাদ কমেছে সুবর্ণচরে। সরেজমিনে ঘুরে কৃষক ও কৃষি অফিস থেকে এ তথ্য পাওয়া যায়। Details
নোয়াখালীর কৃষি : সরকারের সদিচ্ছা ও বাস্তব ভিত্তিক পরিকল্পনা জরুরী
নোয়াখালীর কৃষি : সরকারের সদিচ্ছা ও বাস্তব ভিত্তিক পরিকল্পনা জরুরী
বি জ ন সে ন চলমান নোয়াখালীর ১৩ জানুয়ারী সংখ্যায় জেলার কৃষিক্ষেত্রের এক ভয়াবহ দুঃসংবাদের চিত্র ফুটে উঠেছে। প্রতিবেদক সরকারী সূত্রে প্রাপ্ত তথ্য নির্ভরতা থেকে লিখেছেন, জেলায় এবারও ৬৬ হাজার হেক্টর জমিতে শুকনো মৌসুমে কোন চাষাবাদ হবেনা। সেচ সুবিধা না থাকা এবং চরাঞ্চলে লবনাক্ততা এর অন্যতম কারন। এই বিষয়টি নিয়ে সরকারি বেসরকারি পর্যায়ে অনেক আলোচনা, উর্ধতন কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন, রাজনৈতিক দেনদরবার হয়েছে। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। শুকনো মৌসুমে সেচ সুবিধা বৃদ্ধির জন্য পর্যাপ্ত খাল খনন, রাবার ড্যাম নির্মান, ভৌগলিক অবস্থান ভেদে সেচ প্রকল্প গড়ে তোলার দাবীটি বেশ কয়েকজন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের করকমলে নিবেদিত ছিল। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। ফলে রাষ্ট্র প্রতিবছর প্রায় ১ হাজার কোটি টাকার শষ্য উৎপাদনে বঞ্চিত হচ্ছে।Details
সুবর্ণচরে রবি শষ্য আবাদে ব্যস্ত কৃষক
সুবর্ণচরে রবি শষ্য আবাদে ব্যস্ত কৃষক
আবুল বাসার, সুবর্ণচর::জেলা শষ্য ভান্ডারখ্যত সুবর্ণচরে রবি শষ্যের চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। আর জমি তৈরী ও বীজ বপনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন কৃষকেরা । কৃষকের ব্যস্ততা অন্য বছরের চেয়ে অনেক বেশি। আবাদি কৃষি পণ্যের মধ্যে অন্যতম হলো সয়াবিন, চীনা বাদাম, তরমুজ, মরিচ, মুগডাল, খেসারির ডাল, কলাই, মশারির ডাল ও ঢেড়স অন্যতম। সরজেমিনে গিয়ে দেখা মিললো কৃষকের সেই উৎসাহ আর ব্যস্ততার চিত্র। বিগত বছরের ধারাবাহিকতা রক্ষায় অধিক ফসল উৎপাদনে প্রতিদিন ভোর থেকে সন্ধ্যা অবদি ফসলের জমিতে কৃষকের এই ব্যস্ততা চোখে পড়ে।Details
সুবর্ণচরে আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
সুবর্ণচরে আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
আবুল বাসার, সুবর্ণচর, ০১ জানুয়ারি ২০১৪::নোয়াখালীর শস্যভান্ডার হিসাবে পরিচিত সুবর্ণচরে এবার আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় সময়মত বীজ পাওয়ায় এবং সার ও ঔষধ এবং জমিতে প্রয়োগ করাতে এই বাম্পার ফলন হয়েছে বলে কৃষকদের অভিমত। তাই; আশাতীত ফলন পেয়ে উপজেলার কৃষকের মুখেও হাসি ফুটেছে।Details
কোম্পানীগঞ্জে ফলদ ও বৃক্ষ মেলার শুভ উদ্বোধন
কোম্পানীগঞ্জে ফলদ ও বৃক্ষ মেলার শুভ উদ্বোধন
চ.নো.রিপোর্ট::“দেশি ফলে বেশি পুষ্টি, অর্থ খাদ্যে পাই তুষ্টি” শ্লোগানের মধ্যদিয়ে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বন বিভাগের উদ্যোগে ৪দিন ব্যাপি বৃক্ষমেলা, বৃক্ষরোপন অভিযান এবং ফলদ বৃক্ষরোপন উদ্বোধন করা হয়েছে। Details
ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার ৫ বছর পর অবশেষে চৌমুহনীতে পৌরসভার দুই বহুতল বিপনী বিতান পরিত্যক্ত ঘোষণা : সাভার ট্র্যাজেডির পর টনক নড়লো পৌর কর্তৃপক্ষের !
ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার ৫ বছর পর অবশেষে চৌমুহনীতে পৌরসভার দুই বহুতল বিপনী বিতান পরিত্যক্ত ঘোষণা : সাভার ট্র্যাজেডির পর টনক নড়লো পৌর কর্তৃপক্ষের !
রুদ্র মাসুদ- ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার ৫ বছর পর অবশেষে পৌরসভার দুটি বহুতল বিপনী বিতানকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে নোয়াখালীর প্রধান বাণিজ্যকেন্দ্র চৌমুহনীতে। সাভারে রানা প্লাজা ধ্বসের পর টনক নড়ে চৌমুহনী পৌর কর্তৃপক্ষের। মঙ্গলবার পৌর মেয়র মামুনুর রশিদ কিরন সরেজমিনে চৌমুহনীর পৌর বিপনী বিতান ও পৌর সুপার মার্কেট পরিদর্শন করে দুটি মার্কেটের ব্যবসায়ীদেরকে এক সাপ্তাহের মধ্যে দোকান ছাড়ার অনুরোধ করেন। এর আগে সোমবার পৌর পরিষদের সভায় সর্বসম্মতিক্রমে বিপনী বিতান দুটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা এবং ভেঙ্গে পুনরায় বহুতল মার্কেট নির্মাণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তবে; স্বল্প সময়ে দোকান গুটিয়ে অন্যত্র যাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে ব্যবসায়ীরা।Details
প্রজনন মওসুমে বেশীরভাগই ধরা পড়ছে ছোট সাইজের ইলিশ,  ঝাটকা ! : জেলেরা বলছেন অস্বাভাবিক, বিশেষজ্ঞদের মতে শুভলক্ষণ
প্রজনন মওসুমে বেশীরভাগই ধরা পড়ছে ছোট সাইজের ইলিশ, ঝাটকা ! : জেলেরা বলছেন অস্বাভাবিক, বিশেষজ্ঞদের মতে শুভলক্ষণ
রুদ্র মাসুদ, নোয়াখালী উপকূল থেকে ফিরে::ভাদ্রের শেষে আর আশ্বিনের শুরুতে অবশেষে নোয়াখালী উপকূলের জেলেদের জালে ধরা পড়ছে রূপালী ইলিশ। অমবস্যার পর সোমবার থেকেই জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ ধরা পড়লেও বেশীরভাগই সাইজে ছোট এবং ডিম ছাড়া। তবে; উল্লেখযোগ্য হারে ধরা পড়ছে ঝাটকা ইলিশ। যেসময়ে বড় বড় ইলিশে জাল ভরে যাওয়ার কথা তখন ছোট সাইজের ইলেশের কারণে দামের দিক থেকে মার খাচ্ছে জেলেরা। তারওপর ক’দিন পরই প্রজনন মওসুমের কারণে ১০দিন মাছ ধরা বন্ধ থাকবে। এ অবস্থায় ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ভিন্নমত পোষণ করেছেন জেলেরা। তাঁদের দাবি এটি অন্তত আরো ১০ থেকে ১৫ দিন পিছিয়ে দেওয়া উচিৎ ছিলো। এদিকে ডিমওয়ালা বড় সাইজের ইলিশের পরিবর্তে বিপুল পরিমানে ঝাটকা কিংবা ছোট সাইজের ইলিশ ধরা পড়াকে অস্বাভাবিক বলে মত দিলেও ইলিশ নিয়ে গবেষণা করে এমন বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিরা বলছেন এটি শুভলক্ষণ। তাহলে সারাবছর মাছ মিলবে।Details
নোয়াখালী উপকূলে কমছে ইলিশ আহরণ !
নোয়াখালী উপকূলে কমছে ইলিশ আহরণ !
রুদ্র মাসুদ, হাতিয়া থেকে ফিরে- ভরা মওসুম চলছে তারপরও জেলেদের জালে ধরা পড়ছেনা রূপালী ইলিশ। যে ক’টি পাওয়া যাচ্ছে তাও গত বছরের একই সময়ের তুলানায় কম। জীবিকার তাগিদে জেলের সংখ্যা বাড়লেও বছর বছর কমছে আহরিত ইলিশের পরিমান। ঠিক উল্টো আবার চিত্র খরছের ক্ষেত্রে, খরছের লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না কিছুতেই । তবে; বাজারে চড়া দামের কারণে জেলেরা কিছুটা খুশি হলেও নদীতে মাছ কমে যাওয়ায় চিন্তিত নোয়াখালী উপকূলের জেলেরা। তাছাড়া খরছের সাথে ইলিশ বিক্রি করে প্রাপ্ত টাকার মধ্যে বিস্তর ফারাক। পলি জমে নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়া, বিচরণ ক্ষেত্রেগুলোতে চরজাগায় পানির প্রবাহ কমে যাওয়া, বৃষ্টিপাত কমে যাওয়া এবং জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাতকে ইলিশের পরিমান কমে যাওয়ার জন্য দায়ী করছেন জেলে, ইলিশের আড়ৎদার, মৎস অফিস, নদী বিশেষজ্ঞ এবং ইলিশ গবেষকরা। জেলা মৎস অফিসের গত ৩ বছরের ইলিশ আহরণের হিসাবেও দেখা গেছে একই চিত্র।Details
নোয়াখালীর শাহাজাদপুর-সুন্দলপুর গ্যাস ক্ষেত্র থেকে জাতীয় গ্রীডে গ্যাস সরবরাহ শুরু, গ্যাস পাবে নোয়াখালীবাসী : কম সময়ে গ্যাস সরবরাহ দেশে এই প্রথম
নোয়াখালীর শাহাজাদপুর-সুন্দলপুর গ্যাস ক্ষেত্র থেকে জাতীয় গ্রীডে গ্যাস সরবরাহ শুরু, গ্যাস পাবে নোয়াখালীবাসী : কম সময়ে গ্যাস সরবরাহ দেশে এই প্রথম
রুদ্র মাসুদ::গ্যাস প্রাপ্তির সাত মাস এবং কূপ খননের মাত্র পাঁচ মাসের মাথায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের শাহজাদপুর-সুন্দলপুর গ্যাস ক্ষেত্র থেকে জাতীয় গ্রীডে গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় পরীক্ষামূলকভাবে গ্যাস সরবরাহ কার্যক্রমের সূচনা করেন গ্যাস ক্ষেত্রের প্রকল্প পরিচালক আব্দুল হালিম। এ ক্ষেত্র থেকে প্রতিদিন ১০ থেকে ১২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রীডে যোগ হবে। কোন ধরণের কারিগরি ত্রুটি না দেখা দিলে এ সরবরাহ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।Details
Showing Page 1 of 2 No more page No more page 1