পিকআপ-ইজিবাইক সংঘর্ষে নোবিপ্রবির ছাত্রী নিহত
নিজস্ব প্রতিনিধি
পিকআপ-ইজিবাইক সংঘর্ষে ফৌজিয়া মোসলেম সিলভী (২০) নামে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের এক ছাত্রী নিহত হয়েছে। গতকাল রোববার দুপুরে সোনাপুর-চেয়ারম্যানঘাট সড়কে ঠক্কর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ফৌজিয়া নোয়াখালী পৌর শহরের পশ্চিম সাহাপুর গ্রামের বাইশ বাড়ির মো. মোসলেম উদ্দিনের মেয়ে।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, দুপুর ২টার দিকে ফৌজিয়া ইজিবাইকে সোনাপুর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে যাচ্ছিল। পথে সোনাপুর-চেয়ারম্যানঘাট সড়কে ঠক্কর এলাকায় বিপরিত দিক থেকে আসা একটি পিকআপের সংঘে সংঘর্ষ হয় ইজিবাইকটির। রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন দ্রুত ফৌজিয়াকে প্রথমে স্থানীয় বেসরকারি রয়েল হসপিটালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে দ্রুত ২৫০ শয্যা নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।
সড়ক দুর্ঘটনায় ফৌজিয়ার মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ইফতেখার রাজু জানান, গত ১৬ নভেম্বর নোবিপ্রবি উৎসবের মধ্য দিয়ে বিদায় দেয় ফার্মেসি বিভাগের অষ্টম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের। ফাইনাল পরীক্ষায় উত্তির্ণদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগ ওইদিন বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সেদিন ফৌজিয়া বিভাগে প্রথম স্থান অধিকার করায় সম্মানস্বরূপ ক্র্যাস্ট গ্রহণ করেছেন। সামনে মাস্টার্সে ভর্তির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তিনি। সম্মান থেকে বিদায় নেয়া ফৌজিয়া যে আজ শেষ বিদায় নিবে এমনটা কারোই জানা ছিল না। ফৌজিয়ার মৃত্যুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শোক জানানো হয়েছে।
এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী এ শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে তার বাড়িতে শোকের মাতম বইছে। আশপাশের শত শত নারী-পুরুষের পাশাপাশি নিহের বাড়িতে ভীড় জমিয়েছে সহপাঠি ও শিক্ষকরা। সদ্য সম্মান পরীক্ষায় অংশ নিয়ে বিভাগে প্রথম স্থান নিয়ে প্রথম হওয়া প্রিয় এ সহপাঠির এভাবে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারছে না অন্য সহপাঠিরাও। পরিবারের সদস্য, সহপাঠি ও প্রতিবেশিদের কান্নায় পুরো এলাকার বাতাস ভারি হয়ে ওঠেছে।
নিহতের এক আত্মীয় জানান, ছাত্রী হিসেবে ফৌজিয়া অনেক ভালো ছিল। যার প্রমান ফাইনাল পরীক্ষায় প্রথম স্থান নিয়ে বিভাগে প্রথম হওয়া। আগামী কিছু দিনের মধ্যে মাস্টার্সে ভর্তি হওয়ার কথা ছিল তার। ইতোমধ্যে পারিবারিকভাবেই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের সঙ্গে ফৌজিয়ার বিয়ের বাগদানও সম্পন্ন হয়েছিল। অথচ আজ সব স্বপ্ন কেঁড়ে নিল সড়ক দুর্ঘটনা !
সুধারাম মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ার হোসেন বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে কোন প্রকার অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।