নোয়াখালীতে চার রেস্তোরাকে ২ লাখ ৫ হাজার টাকা জরিমানা
নিজস্ব প্রতিনিধি
নোয়াখালীতে অতিরিক্ত লোডে গ্যাস ব্যবহারের অভিযোগে চার রেস্তোরাকে ৭৫ হাজার টাকা ও নিবন্ধন না থাকায় একটির আরো ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। সোমবার দুপুরের দিকে জেলা শহর মাইজদীর বিভিন্ন স্থানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুসরাত ফাতিমার নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমান আদালত এ জরিমানা করেন। জেলা প্রশাসন ও বাখরাবাদ গ্যাস কোম্পানীর যৌথ উদ্যোগে এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়।
এ সময় ভ্রাম্যমান আদালত নোয়াখালী সুপার মার্কেটের গ্রাউন্ড ফ্লোরে নির্মিত হোটেল আলিফকে ৫০ হাজার, শহরের প্রধান সড়কের সিয়ামকে ৫০ হাজার, হোটেল মায়াকে ৫ হাজার ও হোটেল পার্ক ক্যাফেটেরিয়াকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন পর্যন্ত রেস্তোরাগুলো নির্ধারিত লোড থেকে বেশি গ্যাস ব্যবহার করে আসছিল। সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে এসব রেস্তোরাকে নোটিশও করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও তারা গ্যাসের অতিরিক্ত লোড কমায়নি। ফলে জেলা প্রশাসন ও বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্টিবিউশন কোম্পানী যৌথ উদ্যোগে শহরে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালান করেন। এসময় আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অতিরিক্ত লোড দিয়ে গ্যাস ব্যবহারের সত্যতা পান এবং বাংলাদেশ গ্যাস আইন ২০১০ আইনে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশনের ব্যবস্থাপক মো. সাহাব উদ্দিন এবং সুধারাম মডেল থানার উপ-সহকারি পুলিশ পরিদর্শক নেপাল কুমার দে।
সূত্র জানায়, নির্ধারিত লোডের চেয়ে বেশি লোডে গ্যাস ব্যবহার করায় চার প্রতিষ্ঠানকে মোট ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এর মধ্যে আলিফ হোটেলের নিবন্ধন না থাকায় হোটেল ও রেস্তোরা আইন ২০১৩ আইনে আরো ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সর্বমোট ২ লাখ ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসনের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নুসরাত ফাতিমা ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার কথা নিশ্চিত করে বলেন, রেস্তোরাগুলোকে আগে থেকে সতর্ক করে লোড কমানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তারা নির্দেশ অমান্য করে নির্ধারিত লোডের চেয়ে বেশি লোডে গ্যাস ব্যবহার করায় তাদের বিরুদ্ধে এ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। একই সঙ্গে আলিফকে নিবন্ধন করানোর জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। না হয় ওই হোটেল সিলগালা করা হবে বলেও জানান তিনি।
চলতি সংবাদ