নোবিপ্রবি’র অধীন বিএড (স্নাতক) কোর্সের উদ্বোধন ও কারিকুলাম পরিচিতি
13
নিজস্ব প্রতিনিধি
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) শিক্ষা বিজ্ঞান অনুষদের অধীন শিক্ষা বিভাগের বিএড (স্নাতক) কোর্সের উদ্বোধন এবং কারিকুলাম পরিচিতি অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কবরী হলে ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান, বিশেষ অতিথি ছিলেন নোবিপ্রবি উপাচার্য প্রফেসর ড. এম অহিদুজ্জামান, গ্রিন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ’র উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ গোলাম সামদানি ফকির এবং নোবিপ্রবি উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. আবুল হোসেন প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বক্তারা মানসম্মত শিক্ষা অর্জনে দক্ষ শিক্ষক তৈরি এবং শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়নের জন্য অব্যাহত প্রশিক্ষণের আয়োজন করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভূমিকার কথা তুলে ধরেন। উন্নত বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উদাহরণ উল্লেখ করে অতিথিরা নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান। অনুষ্ঠানে বক্তারা আরো বলেন, শিক্ষায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করে যাচ্ছে। এসকল প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অন্যতম। সমসাময়িক নতুন নতুন বিষয়ে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বাংলাদেশকে বিশ্বদরবারে দক্ষ মানবসম্পদের দেশ হিসেবে তুলে ধরার জন্য এ বিশ্ববিদ্যালয় কাজ করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা বিজ্ঞান অনুষদ প্রতষ্ঠা করা হয়েছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের ন্যায় অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হলেও বাংলাদেশে এই প্রথম কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা বিজ্ঞান অনুষদ প্রতিষ্ঠা করা হলো। মানসম্মত শিক্ষা অর্জনে দক্ষ ও প্রশিক্ষিত শিক্ষক এবং শিক্ষা প্রশাসক তৈরিতে এই উদ্যোগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
প্রধান অতিথি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান বলেন, শিক্ষার লক্ষ্যটা আমরা এখনো নির্ধারণ করতে পারিনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ স্বাধীন হবার পর প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ করেছেন। কারণ তিনি ভেবেছিলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে বিনিয়োগ না করলে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব না। এদিকটি বিবেচনায় রেখে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ‘শিক্ষা বিভাগ’ নামে নতুন বিভাগের উম্মোচন করেছে। তিনি এজন্য নোবিপ্রবি কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানান।
বিশেষ অতিথি নোবিপ্রবি উপাচার্য প্রফেসর ড. এম অহিদুজ্জামান বলেন, শিক্ষার বিশেষায়িত দিকগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে পঠন-পাঠনের সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে শিক্ষা বিজ্ঞান অনুষদের অধীন ‘শিক্ষা বিভাগ’ নামে নতুন বিভাগ খোলা হয়েছে। ভবিষ্যতে এ অনুষদের অধীন আরো ৫টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর চালুর পরিকল্পনার কথা জানান তিনি। পরে বিজয়ের মাসে সকল শহীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি  ‘কোর্স কারিকুলাম’ অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন এবং অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
অন্যান্য বক্তারা বলেন, নোবিপ্রবির শিক্ষা বিজ্ঞান অনুষদের মাধ্যমে এটুআই এর শিক্ষা-উদ্যোগসমূহ প্রাতিষ্ঠানিকভাবে চর্চা করার সুযোগ তৈরি হবে।  সেই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদে মুক্তপাঠ ব্যবহারের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ কোর্সগুলো ইলার্নিং প্ল্যাটফরমে চালু করা সহজতর হবে।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) এবং এটুআই প্রোগ্রাম প্রকল্পের পরিচালক জনাব কবির বিন আনোয়ার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জনাব মো. আফজাল হোসেন সারওয়ার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রামের পলিসি  স্পেশালিস্ট (এডুকেশনাল ইনোভেশন), বিএড কোর্স সম্পর্কে ধারণা প্রদান করেন, জনাব ওয়ালিউর রহমান আকন্দ, চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) শিক্ষা বিভাগ, নোবিপ্রবি।
দুপুরে কোর্স কারিকুলাম বিষয়ক বিস্তারিত মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা পরিচালনা করেন ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, সহযোগী অধ্যাপক, আইইআর- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জি. এম. রাকিবুল ইসলাম, সংযুক্ত কর্মকর্তা এটুআই প্রোগ্রাম প্রমুখ। এতে আগত অতিথিবৃন্দ মতামত প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, নোবিপ্রবির উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, এটুআই প্রোগ্রামের ই-লার্নিং স্পেশালিস্ট প্রফেসর ফারুক আহমেদসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাসহ বিভিন্ন সংস্থার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং বিভিন্ন মিডিয়ার গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
চলতি সংবাদ