কারো আঙ্গুলী হেলনে ফেনী চলবে এই আচরন কেউ পছন্দ করেনা-ফেনীতে ওবায়দুল কাদের
ফেনী থেকে জুলহাস তালুকদার-
কারো আঙ্গুলী হেলনে ফেনী চলবে এই আচরন কেউ পছন্দ করেনা। ফেনীতে ১৪ বছর সম্মেলন নেই, কি11 করুন অবস্থা। আট বছর আগের কর্মী সম্মেলনে চেয়ার ছিলনা। যে অন্ধকার ফেনীকে আসন শুন্য করেছে, সে অন্ধকার দিয়ে কি আসন ফিরে পাবেন? আলোতে যেতে হলে আলো দিয়ে অন্ধকার দূর করতে হবে। ক্ষমতায় এলে ফরমালিন আর হাইব্রিডের উপদ্রব বেড়ে যায়। নেতার আর নেতা, কর্মী  নাই ফেনীতে । ফেনী জেলা আওয়ামীলীগের কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথাগুলো বলেন।  
ওবায়দুল কাদের বিরোধী দলের উদ্দেশ্যে বলেন, মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবী করে খালেদা জিয়া মধ্যবর্তী রশিকতা করছেন। দেশের মানুষ সমঝোতার সেতু দেখতে চায়। আমি শেখ হাসিনার পক্ষে সমঝোতার ডাক দিতে এসেছি।
নজির বিহীন সু-শৃঙ্খল পরিবেশের মধ্য দিয়ে অতীতের সকল দূর্নামকে ঘুচিয়ে দীর্ঘ আট বছর পর গতকাল ফেনীতে জেলা আওয়ামীলীগের কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফেনীর পৌর মেয়র নিজাম হাজারীর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের হাজার-হাজার কর্মীবাহিনী পুরো সমাবেশ স্থল মিছিল ও শ্লোগানে মুখরিত করে রাখেন। সমাবেশে শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর শ্লোগান ছাড়া অন্য কোন শ্লোগান ছিলনা।
জেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজিজ আহম্মদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ফেনীর শিল্প কলা একাডেমীতে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, ত্রান ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী এমপি, সাংবাদিক ইকবাল ছোবহান চৌধুরী, আবদুর রহমান বিকম, নিজাম উদ্দিন হাজারী প্রমুখ। 
আহমেদ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার আলাউদ্দিন নাসিম কোন পদ-পদবীতে না থেকেও ফেনীর জনগনের কাছে কত প্রিয়, পদে না থেকেও নেতা হওয়া যায় তা তিনি ফেনীতে এসে দেখছেন। তিনি আলাউদ্দিন নাসিমকে  মঞ্চে দেখতে চান।
প্রসঙ্গত ২০০৫ সালের ২ সেপ্টেম্বর ফেনীর জহির রায়হান হলে জেলা আওয়ামীলীগের কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে জয়নাল হাজারী ভারতে পালায়নরত অবস্থায় তার স্টিয়ারিং বাহিনী দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করায়। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারনে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি দল থেকে জয়নাল হাজারীর প্রাথমিক পদ খারিজ করে দল থেকে বহিষ্কার  করে।

ফেনীর সংবাদ